বার্সেলোনা ছাড়ছেন লিওনেল মেসি—কথাটা অনেক আগ থেকেই শুনে আসছে তার ভক্তরা। দুই-এক মৌসুম পরপরই মেসির বার্সা ছাড়ার গুঞ্জন ওঠে। কিন্তু এবারের গুঞ্জনটা উঠেছে খুব জোরালোভাবেই।মেসি প্রায় বিরক্ত ও হতাশ মাঠের পারফরম্যান্স এবং মাঠের বাইরে বার্সেলোনার নানা সিদ্ধান্তে। সংবাদমাধ্যমে চাউর হয়েছিল, ২০২১ সালে বার্সা ছাড়তে চান আর্জেন্টাইন তারকা।কিন্তু চ্যাম্পিয়নস লিগ কোয়ার্টার ফাইনালে বায়ার্ন মিউনিখের কাছে ৮-২ গোলে হারের পর নতুন খবর হলো, মেসি নাকি এখনই বার্সা ছাড়তে চান। এতে ইউরোপের ফুটবলে ঝড় ওঠাই স্বাভাবিক।

তবে অনেকেরই চাচ্ছে এই ঝড় থেমে যাক। বার্সা মেসিকে ধরে রাখুক। কাতালান ক্লাবটিরই সাবেক ফরোয়ার্ড স্যামুয়েল ইতোর চাওয়া যেমন, মেসিকে যেভাবেই হোক বার্সা যেন ধরে রাখে। বার্সা সভাপতি হোসে মারিয়া বার্তোমেউের পরিচালনা পর্ষদেরই সাবেক সদস্য এমিলিও রোসাও মনে করেন, মেসি ‘বিক্রির জন্য না’ এ বিষয়টি নিশ্চিত করা উচিত ক্লাবটির। তাঁর বিশ্বাস, বার্সার সঙ্গে মেসির বন্ধন ‘ভাঙা যাবে না।’

মেসির এবারের বার্সা ছাড়ার গুঞ্জন অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি শোনা যাচ্ছে। ক্লাবের প্রতি তাঁর ভালোবাসার কমতি নেই। কিন্তু বার্সা বোর্ডের নেওয়া বিভিন্ন সিদ্ধান্ত তাঁর মনঃপূত হয়নি। বয়স বেড়েছে, আর কয়েক বছরের মধ্যেই হয়তো ফুটবলকে বিদায় বলে দেবেন মেসি। ক্যারিয়ার-সায়াহ্নে এসে ফুটবলার হিসেবে যে খানিক অপ্রাপ্তি আছে, সেটা ঘোচানোর জন্য মেসি বদ্ধপরিকর। কিন্তু সেটা ঘোচানোর জন্য সুস্থ পরিবেশ পাচ্ছেন কোথায় বার্সায়?

রোসাওয়ের বিশ্বাস, মেসিকে ধরে রাখার ব্যাপারে এখনো কথা বলতে পারে বার্সা। ৩৩ বছর বয়সী তারকা ক্যাম্প ন্যু তে ক্যারিয়ার যেন আরও দীর্ঘ করেন সে বিষয়ে আলোচনার টেবিলে বসার সুযোগ আছে। রোসাও আসলে বলতে চেয়েছেন সেই পুরোনো কথাই——মেসিকে যেন আজীবন ধরে রাখে বার্সা। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম ‘মার্কা’কে তিনি বলেন, ‘মেসিকে আজীবন ধরে রাখার চুক্তি করতে হবে। মেসির সঙ্গে বার্সার ইতিহাস ভাঙা যাবে না। সে ক্লাবটি ছেড়ে যেতে পারে না। আমি আশা করি আরও অনেক বছরের জন্য, সেটা যদি ভিন্ন ভূমিকাতেও হয় মেসি বার্সায় থেকে যাক। সে বিক্রির জন্য না, এটা নিশ্চিত করা উচিত।’

এ মৌসুমে কিছুই জেতেনি বার্সা। ঘরোয়া লিগ হারিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদের কাছে। চ্যাম্পিয়নস লিগে বাজেভাবে হেরেছে বায়ার্নের কাছে। এর পাশাপাশি মাঠের বাইরের নানা বিতর্কও চেপে ধরেছে বার্সাকে। রোসাও নিজেও মনে করেন, একেবারে তলানিতে নেমে গেছে বার্সা। এ জন্য বার্সার পরিচালনা পর্ষদকেই দায়-দায়িত্ব নেওয়ার পাশাপাশি যা করার করতে হবে বলে মনে করেন তিনি, ‘আমরা তলানিতে নেমে গেছি বলেই বিশ্বাস করি। আমাদের সবকিছু পুনরায় ভাবতে হবে। বর্তমান বোর্ড গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়ায় মুখাপেক্ষী এবং নতুন পরিকল্পনাকে তাদেরই বাস্তবায়ন করতে হবে।’

আপনার মতামত লিখুন :