ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে পিরোজপুরে প্রতিপক্ষের লোকজন এক ওয়ার্ড ছাত্রলীগ নেতার হাতের কব্জি কেটে দিয়েছে। বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ আশ্বাস দিয়েছেন জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার।

১৮ আগস্ট (মঙ্গলবার) রাত ৯ টার দিকে ২০ থেকে ২৫ জনের একটি দল মঠবাড়িয়া পৌর শহরের হাসপাতাল ব্রিজ এলাকায় মঠবাড়িয়া পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শুভ শীলের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়।  এ সময় প্রতিপক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র দিয়ে তার ঘাড়ে কোপ দেয় ।  সে তার ডান হাত দিয়ে ঠেকানোর চেষ্টা করলে তার ডান হাতের কব্জি আলাদা হয়ে যায়।

স্থানীয়রা তাৎক্ষণিকভাবে তাকে উদ্ধার করে মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। উন্নত চিকিৎসার জন্য পরে তাকে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

পিরোজপুর মঠবাড়িয়া সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মো. ইমরান জানান, স্থানীয় ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জেরে  এ ঘটনা ঘটে। তিনি আরো বলেন, স্থানীয় ছাত্রলীগ দলের সবাই ভাই-ভাই।

পিরোজপুর মঠবাড়িয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মর্তুজা বলেন, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করানোর জন্য বিভিন্ন সময় চাপ দিয়েছিল। কিন্তু তাতে রাজি না হওয়ায় ওৎপেত থেকে হামলা চালিয়েছে।

হামলার নিন্দা জানিয়ে এর সঙ্গে জড়িতদের বিচার দাবি করেছেন মঠবাড়িয়া পৌর ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সোহেল খান।
ঘটনা তদন্ত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন পিরোজপুর পুলিশ সুপার হায়াতুল ইসলাম খান।

হামলার পর থেকে মঠবাড়িয়া এলাকায় ছাত্রলীগের দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

আপনার মতামত লিখুন :