আসছে কওমিদের নতুন প্ল্যাটফর্ম “হেফাজতে ঈমান বাংলাদেশ”

Yousuf AsrafYousuf Asraf
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৪:৩০ PM, ২০ জুলাই ২০২০

হেফাজত ইসলাম থেকে বের হয়ে আসা কওমিদের নতুন প্ল্যাটফর্ম আসছে৷ হেফাজতের বর্তমান নেতাদের একটি অংশ এবং সমালোচিত কিছু নেতার সমন্বয়ে অতিদ্রুত আত্মপ্রকাশ করবে নতুন এ সংগঠনটি। নতুন এ প্ল্যাটফর্মকে বিকল্প “হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশ” মনে করা হচ্ছে।  তবে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের বর্তমান নেতাদের দাবি, আল্লামা শাহ আঃ শফীর বাইরে গিয়ে নতুন কোনো প্লাটফর্ম গঠন করলে তা কওমি অঙ্গনে স্থান পাবে না।

নতুন এই প্ল্যাটফরমের সঙ্গে যুক্ত একাধিক নেতা বলেনঃ হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ বর্তমানে তার স্বকীয়তা হারিয়েছে ফেলছে। এটির অবস্থা এখন ভঙ্গুর, তাই বিকল্প চিন্তা করছে হেফাজত ইসলামের ত্যাগী ও সংস্কারের পক্ষের নেত্রীবৃন্দরা। নবীন ও প্রবিনদের সমন্বয়ে নতুন নেত্রীত্ব হেফাজতের পুরনো ঐতিহ্যকে পুনরুদ্ধার করবে। হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ নেতাদের দাবি, হেফাজতে ইসলামের মূল ধারার বাইরে নতুন কোনো সংগঠন কওমিদের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে না।

জানা যায়; হেফাজতের বর্তমান নেতৃত্বের একটি অংশের ওপর অসন্তুষ্ট হেফাজত ইসলাম ও কওমি মতবাদীদের একটি অংশ। তারা মনে করেন; সরকারের অতি ঘনিষ্ঠ হয়ে নিজের স্বকীয়তা হারিয়েছে ফেলেছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। তাই কওমীদের জন্য বিকল্প আরেকটি সংগঠন তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে হেফাজতের বর্তমান নেতৃত্বের একটি অংশ।

বর্তমান সময়ের আলোচিত চার বক্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়; এই প্লাটফর্ম তৈরিতে জনমত ও শীর্ষ আলেমদের সাথে বৈঠক করতে। হেফাজতের এক শীর্ষ নেতা সহ কমপক্ষে ৮ বিজ্ঞ আলেম পেছনে থেকে তাদের সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করছেন। কওমিদের নতুন প্লাটফর্মের জনমত সৃষ্টি করতে এতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন জেলার শীর্ষ আলেমদের সঙ্গে বৈঠক ও সাক্ষাৎ করে সমর্থন আদায়ের করার চেষ্টা চলছে।

ঢাকার খিলগাঁওয়ে এক আলেম এর বাসায় গত ২২শে জুন বৈঠকের মাধ্যমে ঐ প্লাটফর্মটির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়। এরপর ২৩শে জুন দিনে মুন্সীগঞ্জে এবং রাতে ঢাকার একটি মাদ্রাসায় বৈঠক হয়। এছাড়া চট্টগ্রাম নগরীর পলিটেকনিক এলাকার একটি বাসায় বৈঠক হয় ২৯ জুন।

সর্বশেষ জুলাই এর শুরুতে চট্টগ্রাম জেলার দুটি এলাকায় বৈঠক করেন নতুন সংগঠন এর নেতারা। নতুন এ সংগঠনের নাম এখনো নির্ধারণ না হলেও; কেউ কেউ ‘হেফাজতে ঈমান বাংলাদেশ’ রাখার প্রস্তাবনা দিয়েছেন। এরিমধ্যে নতুন এক সংগঠনের কমিটির দুইটি রূপরেখাও তৈরি করা হয়েছে; যেখানে আমীর পদে চিন্তা করা হচ্ছে; হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের দুই নায়েবে আমীরের মধ্যে যেকোনো একজন কে।

যারা আবার ইসলামী দুটি দলের নেতৃত্বে রয়েছেন। মহা সচিব পদে ভাবা হচ্ছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের এক প্রভাবশালী নেতাকে। সম্ভাব্য দ্বিতীয় কমিটির আমির হিসেবে চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে সম্ভ্যাব্য প্রথম কমিটির মহাসচিবকে। এ কমিটির সম্ভাব্য মহাসচিব হিসেবে চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে একটি আলোচিত-সমালোচিত বক্তাকে। যিনি উসকানি মূলক বক্তব্য দিয়ে সম্প্রতি দেশ ব্যাপী বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন।

আপনার মতামত লিখুন :